Skip to content

NASA এর পূর্ণরূপ কি? নাসা এর সদর দপ্তর কোথায় অবস্থিত?

NASA এর পূর্ণরূপ কি

NASA এর পূর্ণরূপ হলো: National Aeronautics and Space Administration

NASA / নাসা অর্থ ন্যাশনাল অ্যারোনটিক্স অ্যান্ড স্পেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন।

নাসা কি?

নাসা বা ন্যাশনাল অ্যারোনটিক্স অ্যান্ড স্পেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন হলো মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একটি সরকারি সংস্থা যা অ্যারোনটিক্স এবং মহাকাশ গবেষণার জন্য কাজ করে। ন্যাশনাল অ্যারোনটিক্স অ্যান্ড স্পেস অ্যাক্ট দ্বারা NASA ১৯৫৮ সালে নাসা প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। এটি একটি ফেডারেল এজেন্সি যা সৌরজগতের গবেষণা এবং মহাকাশ অনুসন্ধান করে থাকে। পাশাপাশি মানব মহাকাশযান, মহাকাশ এবং অ্যারোনটিক্স গবেষণা এবং পৃথিবী বিজ্ঞান এবং মহাকাশ বিজ্ঞানে সরকারী উদ্যোগের তত্ত্বাবধান করে।

NASA এর সদর দপ্তর কোথায় অবস্থিত?

নাসা এর সদর দপ্তর ওয়াশিংটন ডিসিতে অবস্থিত। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে মোট ১০টি NASA কেন্দ্র রয়েছে। তাছাড়াও নাসার আরো ৭টি ছোট কর্মক্ষেত্র রয়েছে যেখানে পৃথিবী এবং মহাকাশ সম্পর্কীত বিভিন্ন পরীক্ষা ও অধ্যয়ন করে। নাসা আমাদের সৌরজগতের গ্রহ এবং চাঁদ অধ্যয়ন করে।

NASA স্যাটেলাইট তৈরি করে। এই স্যাটেলাইট সমূহ বিজ্ঞানীদের পৃথিবী সম্পর্কিত বিভিন্ন তথ্য জানতে সাহায্য করে। তাছাড়া এগুলি বিজ্ঞান, মহাজাগতিক, সৌরজগত, এবং পৃথিবীর উৎপত্তি, প্রকৃতি এবং বিবর্তন ইত্যাদি সম্পর্কে জানতে সাহায্য করে।

নাসা মহাকাশ ভ্রমণ এবং গবেষণার জন্য সবচেয়ে বেশি পরিচিত। তবেএটি সুপারসনিক ফ্লাইট, শক্তি-দক্ষ বিমান এবং ড্রোনের মতো বিষয়গুলিও গবেষণা করে। বছরের পর বছর ধরে, নাসা মহাকাশ গবেষণায় অগ্রসর হয়েছে এবং বিজ্ঞানে অনেক অবদান রেখেছে। নাসার উল্লেখযোগ্য প্রোগ্রাম এবং মিশনের মধ্যে রয়েছে নভোচারী চাঁদে অবতরণ, মঙ্গল গ্রহের রোভার, গ্রহের চারপাশে উপগ্রহ এবং আন্তঃনাক্ষত্রিক টেলিস্কোপ ইত্যাদি।

মানুষকে চাঁদে পাঠানো এবং পৃথিবীর কক্ষপথে আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশন স্থাপনের পাশাপাশি, NASA আমাদের সৌরজগতের অন্যান্য গ্রহগুলিতে রোবোটিক প্রোব পাঠিয়েছে এবং জ্যোতির্বিজ্ঞানীদের মহাবিশ্ব সম্পর্কে তথ্য জানাতে সাহায্য করে। তাছাড়াও NASA আমাদের নিজস্ব গ্রহ পৃথিবীকে আরও ভালভাবে বুঝতে সাহায্য করে।

নাসা সম্পর্কে কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য:

  1. NASA মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল সরকারের একটি স্বাধীন সংস্থা।
  2. নাসা এর সদর দপ্তর ওয়াশিংটন ডিসিতে অবস্থিত।
  3. NASA মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল সরকার দ্বারা অর্থায়ন করা হয়।
  4. নাসা এর উৎপত্তি বা উত্তরসূরি হলো NACA (ন্যাশনাল অ্যাডভাইজরি কমিটি ফর অ্যারোনটিক্স)।
  5. অ্যারোনটিক্স এবং মহাকাশ গবেষণার পাশাপাশি মার্কিন বেসামরিক মহাকাশ কর্মসূচির জন্য NASA কাজ করে।
  6. ২০১৬ সালে নাসা অ্যারোনটিক্স, পৃথিবী বিজ্ঞান, অনুসন্ধান এবং গ্রহ বিজ্ঞানের জন্য $১৯.৩ বিলিয়ন ডলার পেয়েছিল। 
  7. প্রজেক্ট মার্কারি ছিল নাসার প্রথম প্রজেক্ট।
  8. NASA অ্যাপোলো প্রোগ্রাম (১৯৬১ থেকে ১৯৭২) যা সফলভাবে চাঁদে প্রথম মানুষ পাঠাতে পেরেছিল।
  9. অ্যাপোলো -১ ছিলো চাঁদে প্রথম মহাকাশযান (নীল আর্মস্ট্রং এবং বাজ অলড্রিন) যা ১৯৬৯ সালে চাঁদে অবতরণ করেছিল।
  10. নাসা সৌরজগতের বিভিন্ন গ্রহে ১০৯১টি মনুষ্যবিহীন মহাকাশ উপগ্রহ এবং ১০৯টি মনুষ্যবাহী মিশন চালু করেছে।

আরো পড়ুন:

UNESCO মানে কি এবং এর সম্পূর্ণরূপ কি ব্যাখ্যা কর?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

x
Share via
Copy link
Powered by Social Snap