//ভারত দেশ পরিচিতি | ভারত (ইন্ডিয়া) সম্পর্কিত তথ্য ও ইতিহাস
ভারত দেশ পরিচিতি | ভারত (ইন্ডিয়া) নিয়ে যত অজানা তথ্য Save

ভারত দেশ পরিচিতি | ভারত (ইন্ডিয়া) সম্পর্কিত তথ্য ও ইতিহাস

 ভারত এর সংক্ষিপ্ত পরিচিতি:

১. দেশের নাম ভারত / ইন্ডিয়া
২. মহাদেশের নাম এশিয়া মহাদেশ
৩. অবস্থান ভারতীয় উপদ্বীপ হিমালয় দ্বারা মূল ভূমি এশিয়া থেকে পৃথক করা হয়েছে। ভারতের পূর্বে বঙ্গোপসাগর, পশ্চিমে আরব সাগর এবং দক্ষিণে ভারত মহাসাগর দ্বারা বেষ্টিত।
৪. আয়তন প্রায় ৩.৩ মিলিয়ন বর্গ কিমি।
৫. আবহাওয়া দক্ষিণে গ্রীষ্মমন্ডলীয় বর্ষা থেকে উত্তরে নাতিশীতোষ্ণ পর্যন্ত পরিবর্তিত হয়।
৬. জনসংখ্যা প্রায় ১.২ বিলিয়ন এর বেশি
৭. জাতীয়তা ইন্ডিয়ান
৮. ভাষা হিন্দি, বাঙালি, মারাঠি, তেলুগু, তামিল, গুজরাটি, উর্দু, কন্নড়, ওড়িয়া, মালায়ালাম, পাঞ্জাবি, অসমিয়া, মৈথিলি, এগুলো ছাড়াও ভারতে আরো ভাষা প্রচলিত আছে।
৯. ধর্ম হিন্দু, মুসলিম, খ্রিস্টান, শিখ এবং অন্যান্য ধর্ম।
১০. রাজধানী নয়াদিল্লি

ভূমিকা:

ভারত এশিয়া মহাদেশের একটি বড় অংশ নিয়ে বেষ্টিত। ভারতের উত্তরে রয়েছে জম্মু ও কাশ্মীরের বিতর্কিত অঞ্চল, চীন, নেপাল এবং ভুটান; পূর্ব দিকে রয়েছে মিয়ানমার, বাংলাদেশ এবং বঙ্গোপসাগর; দক্ষিনে রয়েছে ভারত মাহাসাগর, দক্ষিণ-পশ্চিম আরব সাগর দ্বারা সীমাবদ্ধ; এবং উত্তর পশ্চিমে পাকিস্তান দ্বারা বেষ্টিত। ভারত এশিয়াতে দ্বিতীয় বৃহত্তম দেশ যার আয়তন ৩.২৯ মিলিয়ন বর্গকিলোমিটার।



ভারত বিশ্বের বৃহত্তম গণতন্ত্র দেশ এবং জনসংখ্যার ভিত্তিতে বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম দেশ। বর্তমানে ভারতে প্রায় ১.২ বিলিয়ন এর বেশি মানুষের বসবাস। বর্তমান সময়ে ভারতে উন্নতমানের প্রযুক্তির উত্থান এবং নিয়ন্ত্রণমূলক রাষ্ট্র ব্যবস্থার মাধ্যমে দেশটি বৈশিকভাবে ব্যবসায়ের ক্ষেত্রে একটি সম্ভাবনাময় বিনিয়োগের স্থান হিসেবে পরিচিতি লাভ করে। 

বর্তমান সময়ে ভারত একটি উদীয়মান অর্থনৈতিক পাওয়ার হাউস এবং পারমাণবিক-সজ্জিত রাষ্ট্র হিসাবে একটি গুরুত্বপূর্ণ আঞ্চলিক শক্তি হিসাবে আত্মপ্রকাশ করেছে। অর্থনৈতিক স্বাধীনতার একটি নতুন চেতনা ভারতে আলোড়ন সৃষ্টি করছে, এর পরিপ্রেক্ষিতে ব্যাপক পরিবর্তন আনছে। বর্তমানে ভারত বিদেশী বিনিয়োগকারীদের দীর্ঘমেয়াদী বিনিয়োগের সুরক্ষার জন্য স্বচ্ছ পরিবেশ এবং যুক্তিসঙ্গত প্রত্যাবর্তনের সুযোগ ‍দিচ্ছে। 

ভারতের স্বাধীনতার পর থেকেই চতুর্দিকে আর্থ-সামাজিক অগ্রগতি অর্জন করেছে। ভারত কৃষিক্ষেত্রে স্বাবলম্বী হয়ে উঠেছে এবং এখন বিশ্বের শীর্ষ শিল্পোন্নত দেশগুলির একটি এবং জনগণের সুবিধার্থে প্রকৃতিকে জয় করতে বহিরাগত মহাশূন্যে চলে যাওয়া কয়েকটি দেশগুলির মধ্যে একটি। 

ভারত এর জনসংখ্যা ২০২৮ সালে চীনকে ছাড়িয়ে বিশ্বের সর্বাধিক জনবহুল দেশ হওয়ার প্রত্যাশা করা হচ্ছে। ইন্ডিয় বর্তমানে সামরিকভাবে অনেক শক্তিশালী একটি দেশ এবং একটি পারমাণবিক-সজ্জিত রাষ্ট্র।

ভারত/ইন্ডিয়া এর ভৌগলিক মানচিত্র:

ভারত দেশ পরিচিতি | ভারত (ইন্ডিয়া) নিয়ে যত অজানা তথ্য
  • Save

ভারতের ইতিহাস:

ভারত একটি প্রাচীন সভ্যতার দেশ। ভারতের ইতিহাস বিশ্বমঞ্চে এক দুর্দান্ত মহাকাব্য হিসেবে পরিচিত। ভারতের নামটি সিন্ধু নদী থেকে এসেছে। সিন্ধু সভ্যতার জন্ম এবং আর্যদের আগমনের মধ্য দিয়েই মূলত ভারতীয় ইতিহাস শুরু হয়। এই দুটি পর্যায় সাধারণত প্রাক-বৈদিক এবং বৈদিক যুগ হিসাবে বর্ণনা করা হয়। বৈদিক যুগে হিন্দু ধর্মের উত্থান হয়েছিল।

গুপ্ত সাম্রাজ্যের 200 বছরের শাসনামলে, চতুর্থ শতাব্দীর এডি থেকে শুরু করে, কলা, কারুশিল্প এবং বিজ্ঞানগুলি সমৃদ্ধ হয়। এই সময়ে, ভারতীয় জ্যোতির্বিদ আর্যভট্ট নির্ধারণ করেছিলেন যে পৃথিবী সূর্যের চারদিকে ঘোরে। পশ্চিমা বিশ্ব তত্ত্বটি গ্রহণ করার অনেক আগে থেকেই ছিল।



তারপর ষোল শতকের শুরুতে, বাবুর নামে একজন বিখ্যাত মুঘল নেতা মুঘল সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। মুঘল সাম্রাজ্য প্রায় ১৫২৭ থেকে ১৭০৭ সালের মধ্যে ভারতের শিল্প, সাহিত্য এবং বিভিন্ন ধরনের স্থাপত্যকলা নির্মাণ করে ভারতীয় ইতিহাসে এক বড় অবদান রাখেন। এসব স্থাপত্যের মধ্যে সবচেয়ে অন্যতম তাজমহল একটি, সম্রাট শাহজাহান তার স্ত্রীর প্রতি অফুরন্ত ভালোবাসার এক নিদর্শন আজকের বিশ্বখ্যাত তাজমহল।

পরবর্তীতে ইউরোপীয়রা ভারতে পৌঁছে ১৪০০ এর দশকের শেষের দিকে। ইউরোপীয়রা ভারতের মধ্যে বাণিজ্য করা শুরু করে এবং ১৭৫৭ সালে পলাশীর যুদ্ধ জয় করার মাধ্যমে ভারতের বেশিরভাগ অঞ্চল তাদের নিয়ন্ত্রনে নিয়ে নেয়। তারা প্রায় পুরো ভারতীয় উপমহাদেশকে ২০০ বছর শাসন করেছিল। পরবর্তীতে ১৮৫৬ সালের দিকে ব্রিটিশ শাসনের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ শুরু হয়েছিল। নানা ধরনের প্রতিবাদ এবং বিদ্রোহ করার পর ব্রিটিশরা অবশেষে ভারতীয় উপমহাদেশ ত্যাগ করার সিদ্ধান্ত নেয়। তারপর ভারতীয় উপমহাদেশ দুইটি অংশে বিভক্ত হয় একটি পাকিস্তান নামে অন্যটি ভারত নামে। ভারতীয় উপমহাদেশ বিভক্ত হয় হিন্দু ও মুসলিম জনগাষ্ঠীর ভিত্তিতে। ভারত সাধীনতা লাভ করে ১৯৪৭ সালে।

ভারত এর অর্থনৈতিক পরিস্থিতি:

ভারত একটি দ্রুত অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির দেশ। বর্তমানে ভারতে বিশাল দক্ষ কর্মীশক্তি নিয়ে দ্রুত বর্ধনশীল অর্থনীতির উন্নতির দিকে যাচ্ছে তবে দুর্নীতি ও দারিদ্র্যের মাত্রাও কম নয়। ভারতে বৃহত্তর সুযোগ এবং উচ্চতর জীবনযাত্রার মানের সন্ধানে ভারত এবং অন্যান্য উন্নয়নশীল দেশ জুড়ে লোকেরা শহর ও নগর অঞ্চলে ছুটে আসে। তাদের শ্রমের ফল এবং নগরের আর্থিক, মানবিক এবং সামাজিক মূলধনের অর্থনৈতিক সুবিধাগুলি ভারতের বিকাশ এবং নগরায়নের উন্নতি করতে সহায়তা করছে।

দারিদ্রের অবসান এবং যৌথ সমৃদ্ধির পাশাপাশি ২০৩০ সালের মধ্যে টকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অর্জন করবে বলে আশা করা যায়। ভারতের গতিশীল এবং অত্যন্ত প্রতিযোগিতামূলক বেসরকারী ক্ষেত্র দীর্ঘকাল ধরে তার অর্থনৈতিক ক্রিয়াকলাপের মেরুদণ্ড। বর্তমান সময়ে ভারতে বিদেশী বিনিয়োগকারীদের জন্য আগ্রহ বাড়ানোর জন্য অনেক সুযোগ সুবিধা এবং সুষ্ঠ পরিবেশ প্রধান করেছে।

ভারতের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক:

প্রতিবেশী দেশ পাকিস্তানের সাথে ভারতের সম্পর্কের আন্তর্জাতিক রাজনীতি ও সুরক্ষায় ভারতের ভূমিকার উপর একটি সংজ্ঞাপূর্ণ প্রভাব রয়েছে। দুটি দেশের মধ্যে প্রায়শই অস্বস্তিকর ঘটনার সৃষ্টি হয়, বিশেষভাব কাশ্মীর অঞ্চলকে কেন্দ্র করে। শান্তি ও স্থিতিশীলতা বজায় রাখা এবং পারমাণবিক অস্ত্রের যে কোনও বৃদ্ধি রোধের লক্ষ্যগুলি এই অঞ্চলে অনেক দেশের বিদেশী নীতি, বিশেষত আমেরিকা এবং অন্যান্য উচ্চ উন্নত পশ্চিমা দেশগুলিকে পরিচালনা করে।



ভারত এর বৃহত্তম ১০টি শহর(মেগা সিটি) :

  1. মুম্বাই——– ১৮.৪ মিলিয়ন মানুষের বসবাস
  2. নয়াদিল্লি—- ১৬.৩ মিলিয়ন ””
  3. কলকাতা—-১৪.৩ মিলিয়ন ””
  4. চেন্নাই —— ৮.৭ মিলিয়ন ””
  5. বেঙ্গালুরু — ৮.৫ মিলিয়ন ””
  6. হায়দরাবাদ — ৭.৭৫ মিলিয়ন ””
  7. আহমেদাবাদ- 6.3 মিলিয়ন ””
  8. পুনে ——— ৫.০ মিলিয়ন ””
  9. সুরাট——— ৪.৫ মিলিয়ন ””
  10. জয়পুর —— ৩.১ মিলিয়ন ””

ভারতের ১০টি আকর্ষণীয় পর্যটন স্থান:

  1. তাজমহল, আগ্রা
  2. বারাণসীর পবিত্র শহর
  3. হর্মন্দির সাহেব: অমৃতসরের স্বর্ণ মন্দির
  4. গোল্ডেন সিটি: জয়সালমার
  5. লাল কেল্লা, নয়াদিল্লি
  6. মুম্বাই: ভারতের প্রবেশপথ
  7. মক্কা মসজিদ, হায়দরাবাদ
  8. আমের ফোর্ট, জয়পুর
  9. গোয়ার সৈকত
  10. পেরিয়ার জাতীয় উদ্যান এবং বন্যজীবন অভয়ারণ্য, মাদুরাই