//খাদ্য কি বা খাদ্য কাকে বলে? খাদ্যের উপাদান কয়টি ও কি কি?
জীবের দেহে শক্তি সরবারহ করতে, দেহ গঠনে, জীবনকে বজায় রাখতে যেসব জৈব উপাদান গ্রহণ করে তাকে খাদ্য বলে। অর্থাৎ খাদ্য হলো পুষ্টিগুণযুক্ত কোনও পদার্থ যা প্রাণীর দেহে শক্তি সরবরাহ এবং টিস্যু তৈরি ও প্রতিস্থাপন এবং জীবন বজায় রাখতে সহায়তা করে। Save

খাদ্য কি বা খাদ্য কাকে বলে? খাদ্যের উপাদান কয়টি ও কি কি?

জীবের দেহে শক্তি সরবারহ করতে, দেহ গঠনে, জীবনকে বজায় রাখতে যেসব জৈব উপাদান গ্রহণ করে তাকে খাদ্য বলে।

অর্থাৎ খাদ্য হলো পুষ্টিগুণযুক্ত কোনও পদার্থ যা প্রাণীর দেহে শক্তি সরবরাহ এবং টিস্যু তৈরি ও প্রতিস্থাপন এবং জীবন বজায় রাখতে সহায়তা করে।

একজন মানুষ পানি পান করা ছাড়া মাত্র ৩ দিন বাঁচতে পারে এবং খাবার গ্রহণ ছাড়া বাঁচতে পারে ৩ সপ্তাহ।

খাদ্যের পুষ্টি উপাদান রয়েছে ৬টি:

  1. ভিটামিন
  2. খনিজ লবণ
  3. শর্করা
  4. আমিষ
  5. চর্বি
  6. পানি
১. ভিটামিন: 

ভিটামিন শরীরের অনেক রাসায়নিক প্রক্রিয়ায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। ভিটামিন রোগ থেকে বাঁচতে এবং সুস্থ থাকার জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। তাছাড়া ভিটামিন রোগ প্রতিরোধের ক্ষমতা বৃদ্ধি করে, খাদ্য হজমে সাহায্য করে। ১৩ টি প্রয়োজনীয় ভিটামিন রয়েছে যা শরীরকে সঠিকভাবে কাজ করতে সহায়তা করে।

২. খনিজ লবন:

খনিজ লবন আপনার শরীরে শক্তিশালী হাড় ও দাঁত তৈরি করে, আপনার বিপাক নিয়ন্ত্রণ করে এবং সঠিকভাবে হাইড্রেটেড থাকতে সহায়তা করে। হাড়কে শক্তিশালী করার পাশাপাশি ক্যালসিয়াম নার্ভ সিগন্যাল সংক্রমণ, স্বাস্থ্যকর রক্তচাপ বজায় রাখতে এবং পেশীর সংকোচন এবং শিথিলকরণে সহায়তা করে।



৩. শর্করা:

শর্করা আমাদের দেহে শক্তি প্রদান করে। স্বাস্থ্যকর দেহের জন্য শর্করা জরুরী। কিছু শর্করা জাতীয় খাবার হলো: গম, ভুট্টা, যব, আলু ইত্যাদি।

৪. আমিষ:

আমিষ জাতীয় খাবার আপনার দেহের বৃদ্ধি সাধন, ক্ষয়পূরণ, রক্ত কণিকা গঠনে সহায়তা করে। তাছাড়া আপনার পেশী এবং অন্যান্য শরীরের টিস্যু বৃদ্ধি এবং মেরামতের জন্য প্রয়োজনীয়।



৫. চর্বি:

চর্বি শরীরকে শক্তি সরবরাহ করে এবং এটি বিভিন্ন ক্রিয়াকলাপ পরিচালনা করতে সহায়তা করে। আপনার সঠিক স্বাস্থ্য বজায় রাখতে নির্দিষ্ট পরিমাণে চর্বি যু্ক্ত খাবার প্রয়োজন। আপনার ডায়েটে স্বাস্থ্যকর চর্বি অন্তর্ভুক্ত করা আপনার রক্তে চিনির ভারসাম্য রক্ষা করতে, হৃদরোগের ঝুঁকি হ্রাস করতে এবং টাইপ 2 ডায়াবেটিস এবং মস্তিষ্কের কার্যকারিতা উন্নত করতে সহায়তা করে।

৬. পানি:

আমরা সবাই জানি যে, পানির অপর নাম জীবন, তবে পানি বিশুদ্ধ হতে হবে। আমাদের দেহ বেশিরভাগ পানি দিয়ে গঠিত এবং দেহের প্রতিটি কোষ ও অঙ্গ সঠিকভাবে কাজ করার জন্য পর্যাপ্ত পানি প্রয়োজন। পানি খাদ্য হজমে ও শরীরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে।